1. [email protected] : amzad khan : amzad khan
  2. [email protected] : NilKontho : Anis Khan
  3. [email protected] : Nil Kontho : Nil Kontho
  4. [email protected] : Nilkontho : rahul raj
  5. [email protected] : NilKontho-news :
  6. [email protected] : M D samad : M D samad
  7. [email protected] : NilKontho : shamim islam
  8. [email protected] : Nil Kontho : Nil Kontho
  9. [email protected] : user 2024 : user 2024
  10. [email protected] : Hossin vi : Hossin vi
ধানের দামে কৃষক খুশি! | Nilkontho
২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | মঙ্গলবার | ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
হোম জাতীয় রাজনীতি অর্থনীতি জেলার খবর আন্তর্জাতিক আইন ও অপরাধ খেলাধুলা বিনোদন স্বাস্থ্য তথ্য ও প্রযুক্তি লাইফষ্টাইল জানা অজানা শিক্ষা ইসলাম
শিরোনাম :
বগুড়ার কাহালু উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীদের চিকিৎসা সেবা মারাত্মক অনিয়ম জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে যোগ দিতে ঢাকা ত্যাগ”বাংলাদেশ পুলিশ জবিতে ইমামকে অব্যাহতি, নারী শিক্ষার্থী বললেন ঘটনা সাজানো বীরগঞ্জে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সম্প্রতি মেলা ও শিক্ষাবৃত্তি, বাইসাইকেল বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে উথলী ইউপি চেয়ারম্যানের ওপর হামলা, অবস্থা গুরুতর কাজিপুর গোয়ালবাথান উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগে দুর্নীতি যে ভুলে পুরুষরা কিডনিতে পাথরের সমস্যায় বেশি ভোগেন ঘূর্ণিঝড় রেমাল: মোংলায় ৭নং বিপদ সংকেত কাজিপুরে গোয়ালবাথান উচ্চ বিদ্যালয়ে পরীক্ষা ছাড়াই নিয়োগ চুয়াডাঙ্গায় পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু দর্শনা-ভাঙ্গা রুটে নতুন ট্রেন, বাঁচবে সময় কমবে ভোগান্তি প্রবাসীর ঘরে ঢুকে মা ও স্ত্রীকে ছুরিকাঘাতে আহত যশোরের শার্শায় শালিসী বৈঠকে যুবককে পিটিয়ে হত্যা সিরাজগঞ্জে ছাত্রনেতা রাকিবের উদ্যোগে (টিপিবি) সেলাই মেশিন বিতরন ঈদকে সামনে রেখে অজ্ঞান পার্টির বেপরোয়া-টার্গেট গরু ব্যবসায়ীরা। ঢাকাগামী ট্রেন সেবা চালু রাখতে মানববন্ধন। চুয়াডাঙ্গায় আবারো স‌র্বোচ্চ তাপমাত্রার রেকর্ড ৪ বছর কারাভোগ শেষে দেশে ফিরল ভারতীয় নাগরিক। ৬ বছরের শিশুকে ধর্ষণ,চাচা-আটক বেনজীরের সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ

ধানের দামে কৃষক খুশি!

  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ২৪ মোট দেখা:
নিউজ ডেস্ক:
সবুজ মাঠ এখন পাকা ধানে ভরা। আমন ধানের সোঁদা গন্ধ গ্রামবাংলাজুড়ে। পাকা ধানের ম-ম গন্ধে মাতোয়ারা কৃষক। সারাদেশে চলছে আমন কাটার ভরা মৌসুম। কৃষকের ঘরে আনন্দের বন্যা। তাদের আঙিনায় এখন সোনারঙা ধানের ছড়াছড়ি। আশানুরূপ ফলনে কৃষকের মুখে ফুটেছে হাসি। হাটে ধানের দামও মিলছে ভালো। তাই উৎসাহ আর উদ্দীপনায় চলছে কৃষকের কাস্তে। টানা পাঁচ বছর লোকসান গোনার পর হিসাব কষে এবার লাভের কথাই বলছেন কৃষক।
ধান কাটা, মাড়াই, বাছাই আর বিক্রি নিয়ে দারুণ ব্যস্ত কৃষক। দম ফেলানোর ফুরসত নেই তাদের। একদিকে ধান কাটা হচ্ছে, অপরদিকে সেই ধান মাড়াই করা হচ্ছে। রাস্তায় ধান মাড়াই ও শুকানো হচ্ছে। বাজারে নতুন ধান উঠতে শুরু করায় চালের বাজারও স্থিতিশীল রয়েছে। ভেজা ধান আটশ’ থেকে ৯২০ টাকা মণে বিক্রি হচ্ছে। গ্রামে গ্রামে নবান্নের আনন্দ বইছে। কৃষিভিত্তিক শ্রমের বাজারেও চাঙ্গাভাব। আমন ধানকে কেন্দ্র করে গ্রামীণ অর্থনীতিতে চাঙ্গাভাব সৃষ্টি হয়েছে। দেশে উৎপাদিত ধানের প্রায় ৪০ শতাংশ আসে আমন থেকে। বোরো থেকে আসে প্রায় ৬০ শতাংশ।

ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, শেরপুর, বগুড়া, রাজশাহীর গ্রামাঞ্চলে গুটি স্বর্ণা ধান বিক্রি হচ্ছে ৭৫০ থেকে ৭৬০ টাকায়। গত মৌসুমে প্রতি মণ গুটি স্বর্ণা বিক্রি হয় ৪৮০ থেকে ৬৫০ টাকায়। চিকন চালের ধান বিক্রি হচ্ছে ৮৫০ থেকে ৯২০ টাকায়। নেত্রকোনার দুর্গাপুরের ভাদুয়া-শ্রীপুর গ্রামের কৃষক আবু সামা জানান, গত বুধবার পাইজাম জাতের ধান ৯০৫ টাকা মণে

বিক্রি করেছেন। কয়েক বছর ধানের দাম নিয়ে তিনি হতাশ হলেও এবার দারুণ খুশি।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর (ডিইএ) সূত্র জানায়, চলতি মৌসুমে ৫৬ লাখ ৪৫ হাজার হেক্টর জমিতে ১ কোটি ৩৫ লাখ ৫৫ হাজার টন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। গত অর্থবছরে ৫৫ লাখ ৩০ হাজার হেক্টর জমিতে ১ কোটি ৩১ লাখ ৯০ হাজার টন আমন ধান উৎপাদন হয়। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কৃষিবিদ হামিদুর রহমান সমকালকে বলেন, মাঠে পুরোদমে আমন ধান কাটা হচ্ছে। ইতিমধ্যে আবাদের অর্ধেক এলাকার ধান কাটা শেষ হয়েছে। এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় বাম্পার ফলন হয়েছে। ভালো দাম পাওয়ায় এবার কৃষকরা দারুণ খুশি।

উত্তরের চার জেলা বগুড়া, জয়পুরহাট, পাবনা ও সিরাজগঞ্জেও ভালো দাম পাওয়ায় খুশি কৃষক। গত বছরের তুলনায় এবার মৌসুমের শুরুতেই জাতভেতে ধান মণপ্রতি ২০০ থেকে ২৫০ টাকা বেশি দরে কেনা-বেচা হচ্ছে। কৃষকরা বলছেন, এবার চালের বাজার চড়া থাকায় ধানের দাম বেড়েছে। পাশাপাশি ফলনও ভালো হওয়ায় গত বছরের মতো এবার লোকসানের আশঙ্কা নেই। যে কারণে মৌসুমের শুরুইে খুশির ঝিলিক ছড়িয়ে পড়েছে কৃষক-কৃষাণীর চোখে-মুখে। কৃষি বিভাগের হিসাব অনুযায়ী, গত ২৪ নভেম্বর পর্যন্ত ওই চার জেলায় মোট আবাদ করা আমনের অন্তত ৬৫ শতাংশ কাটা হয়ে গেছে। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, চিকন জাতের ধান যেমন- ‘বিনা-৭’, ‘বি আর-৪৯’, ‘রণজিত’, ‘স্বর্ণা’ ‘পাইজাম’ ও ‘কাটারিভোগ’ ধানই আগে পেকেছে। আর ‘ব্রি-৩৩’, ‘ব্রি-৩৯’, ‘ব্রি-৫৬’সহ মোটা জাতের ধানগুলো এখন পাকতে শুরু করেছে।

বগুড়ার কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, হাইব্রিড, উচ্চ ফলনশীল এবং স্থানীয়_ এই তিন ধরনের ধানে এবার হেক্টরপ্রতি গড় ফলন এসেছে ৩ দশমিক ১৪ টন। বগুড়ায় বরাবরের মতো এবারও নন্দীগ্রাম ও শাজাহানপুরে বেশ আগেই ধান কাটা শুরু হয়েছে। নন্দীগ্রামের পেংহাজারকি গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, মাঠের অর্ধেকেরও বেশি জমির ধান কাটা হয়ে গেছে। কুড়িগ্রাম ও গাইবান্ধা থেকে আসা অনেক শ্রমিক ধান কাটার কাজে নিয়োজিত রয়েছেন। ওই গ্রামের কৃষক মিজানুর রহমান জানান, এবার মৌসুমের শুরুতে কিছুটা খরা ছিল, তবে পরে প্রচুর বৃষ্টি হয়েছে। তার মতে প্রথম দিকে খরা থাকার কারণে ধান গাছে পোকা-মাকড় আক্রমণ করতে পারেনি। পরে যখন গামর (গাছে ধান জন্ম নেয়) আসে তখন বৃষ্টি হওয়ায় শেষ পর্যন্ত ফলন ভালো হয়েছে।

আবু বকর নামে এক কৃষক বলেন, গত বছর ধান কাটার মৌসুমে স্বর্ণা জাতের ধানের দাম ছিল সর্বোচ্চ ৫৫০ টাকা মণ। এবার একই ধান ৭৫০ থেকে ৮০০ টাকা মণ দরে কেনাবেচা হচ্ছে। ‘বিনা-৭’ ও ‘রণজিত’ জাতের ধান বিক্রি হচ্ছে ৭২০ থেকে ৭৫০ টাকায়। দাম ভালো পাওয়ায় খুশি মিজানুর রহমান বলেন, এবার ১০ বিঘা জমিতে দিনাজপুরের বিখ্যাত ‘কাটারিভোগ’ ধানের আবাদ করেছিলাম। প্রতি বিঘায় গড়ে ২০ মণ করে ফলন পেয়েছি। প্রতিমণের দামও ৮৫০ টাকার উপরে। সামনের দিনে দাম আরও বাড়বে বলে আশা করছি। এতে লাভের পরিমাণও বাড়বে। বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার বীরগ্রামের কৃষক আবদুল কুদ্দুস জানান, তিনি তার ৫ বিঘা জমির মধ্যে ৩ বিঘায় ‘স্বর্ণা’ এবং বাকি ২ বিঘায় ‘বিনা-৭’ জাতের ধান আবাদ করেছিলেন। প্রতি বিঘায় গড়ে ১৯ মণ করে ফলন পেয়েছেন। পাইকাররা প্রতি মণ ‘স্বর্ণা’ জাতের ধানের দাম হাঁকাচ্ছেন ৭৫০ থেকে ৮০০ টাকা আর ‘বিনা-৭’ কেনাবেচা হচ্ছে ৭২০ থেকে ৭৫০ টাকায়। তার মতে এবার চালের দাম চড়া হওয়ার কারণেই ধানের দামও বাড়তির দিকে। আমন আবাদে কৃষকদের ভালো লাভ থাকবে জানিয়ে তিনি বলেন, এক বিঘা জমিতে ধানের আবাদ করতে অঞ্চল ভেদে ৫ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ৭ হাজার টাকা খরচ হয়। এখন ধানের যে দাম যাচ্ছে তাতে সব খরচ বাদ দিয়েও একজন কৃষকের ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা লাভ থাকবে।

বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার কৃষক আনিসুল হক জানান, গত বছরের তুলনায় এবার রণজিত ও লাল পাইজাম জাতের ধান মণপ্রতি ১৫০ থেকে ২০০ টাকা বেশি দামে বেচাকেনা হচ্ছে। গতকাল শুক্রবার সকালে রণজিত বিক্রি হয়েছে ৭৪০ টাকা মণ দরে। গত বছর এই জাতের ধান কেনাবেচা হয়েছে ৫৮০ থেকে ৬০০ টাকায়। একইভাবে গত বছরের ৮৫০ টাকার লাল পাইজাম ধান এবার বিক্রি হচ্ছে ৯৩০ থেকে ৯৫০ টাকা মণ দরে। উপজেলার ধাপসুলতানগঞ্জ হাটের ধান ব্যবসায়ী আবুল কাশেম জানান, মূলত অটো রাইস মিল মালিকরাই বেশি ধান কিনছেন। বগুড়া কৃষি অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক হযরত আলী জানান, এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ধানের ফলন ভালো হয়েছে।

অনুকূল আবহাওয়া থাকায় রাজশাহীতেও এবার রোপা আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। ভালো ফলনের সঙ্গে এবার দামও মিলছে ভালো। রাজশাহীর অধিকাংশ চাষির ধান কাটা হয়ে গেছে। চাষিরা জমিতে রেখেই ধান শুকিয়ে নিচ্ছেন। এরপর তারা ধান মাড়াই করে ঘরে তুলছেন। এ কাজে চাষিদের সঙ্গে ব্যস্ত সময় পার করছেন এখানকার শ্রমিকরা। পবা উপজেলার দুয়ারী গ্রামের কৃষক দ্বীন মোহাম্মদ বলেন, গত বছর ৫০০ টাকা মণ দরে ধান কেনার লোক ছিল না। এ বছর মোটা ধানও বিক্রি হচ্ছে ৮০০ টাকা মণ। সরু ধান ৮৫০ থেকে ৯০০ টাকা মণ দরে বিক্রি হচ্ছে।

পবা উপজেলার মাঝিগ্রাম এলাকার চাষি আবদুর রশিদ জানান, ৪৯ জাতের ধান ৯০০ টাকা মণ বিক্রি হচ্ছে। ভালো দাম থাকায় কৃষকরা লাভবান হচ্ছেন। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপপরিচালক মঞ্জুরুল হক বলেন, ‘এবার রোপা আমন চাষের মৌসুমটা খুবই অনুকূলে ছিল। কিছু দিন পরপর পরিমাণ মতো বৃষ্টি হয়েছে। তাই সেচের প্রয়োজন হয়নি। আকাশ মেঘলা ছিল না বলে রোগবালাই কম হয়েছে। প্রতি বিঘা জমিতে ২০ থেকে ২২ মণ হারে ধান হয়েছে।

এই পোস্ট শেয়ার করুন:

এই বিভাগের আরো খবর

নামাযের সময়

সেহরির শেষ সময় - ভোর ৩:৫১
ইফতার শুরু - সন্ধ্যা ৬:৪৮
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৫৬
  • ১২:০৫
  • ৪:৪০
  • ৬:৪৮
  • ৮:১২
  • ৫:১৮

বিগত মাসের খবরগুলি

শুক্র শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১