1. [email protected] : amzad khan : amzad khan
  2. [email protected] : NilKontho : Anis Khan
  3. [email protected] : Nil Kontho : Nil Kontho
  4. [email protected] : Nilkontho : rahul raj
  5. [email protected] : NilKontho-news :
  6. [email protected] : M D samad : M D samad
  7. [email protected] : NilKontho : shamim islam
  8. [email protected] : Nil Kontho : Nil Kontho
  9. [email protected] : user 2024 : user 2024
  10. [email protected] : Hossin vi : Hossin vi
নিউইয়র্কে জীবনযুদ্ধ! | Nilkontho
২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | মঙ্গলবার | ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
হোম জাতীয় রাজনীতি অর্থনীতি জেলার খবর আন্তর্জাতিক আইন ও অপরাধ খেলাধুলা বিনোদন স্বাস্থ্য তথ্য ও প্রযুক্তি লাইফষ্টাইল জানা অজানা শিক্ষা ইসলাম
শিরোনাম :
৫০ দিনের মধ্যে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন: জরুরি বৈঠকে ইরানের মন্ত্রিসভা প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মৃত্যু নিশ্চিত করল ইরান সরকার দেশে ফিরেছেন সেনাপ্রধান সোনার ভ‌রি ছাড়াল এক লাখ সাড়ে ১৯ হাজার মিষ্টির থাপড়াতে চাওয়া নিয়ে মুখ খুললেন-জয় মিশা-ডিপজলকে মূর্খ বললেন নিপুণ! পুলিশ বক্সে আগুন দিলো ব্যাটারিচালিত রিকশাচালকরা কেরুর শ্রমিক-কর্মচারীদের মাঝে ”উৎসবের আমেজ” শেষ হচ্ছে চুয়াডাঙ্গা সদর ও আলমডাঙ্গা উপজেলা নির্বাচনের প্রচারণা বান্দরবানে সেনাবাহিনীর অভিযানে ৩ কেএনএফ সদস্য নিহত ওয়াজ শুনে প্রেমিকের সঙ্গে বাড়ি ফেরার পথে ধর্ষণের শিকার তরুণী, থানায় মামলা আশা শিক্ষা কর্মসূচী কর্তৃক অভিভাবক মতবিনিময় সভা জীবননগরে মায়ের বিরুদ্ধে অনৈতিক কাজের অভিযোগ মেয়ের, শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন নিখোঁজ ঝিনাইদহ -৪ আসনের এমপি আনার ভোলার নির্বাচন হবে অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য- কমিশনার আহসান হাবিব  আমাকে এত বড় দায়িত্ব দেওয়া হবে জানতাম না: শেখ হাসিনা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বিরূপ প্রভাব ঠেকাতে আসছে আইন – তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী “হেলমেট ছাড়া জ্বালানি তেল বিক্রি নিষিদ্ধ ঘোষণা” চুয়াডাঙ্গায় সড়ক দুর্ঘটনায় বাইসাইকেল আরোহী নিহত নামাজের সময় তালা আটকে মসজিদে দেওয়া হলো আগুন, নিহত ১১

নিউইয়র্কে জীবনযুদ্ধ!

  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০১৬
  • ৩৫ মোট দেখা:

নিউজ ডেস্ক:

কনকনে শীত। দমকা বাতাস। রাস্তার দু’পাশে জমে থাকা তুষার গলতে শুরু করেছে। স্যাঁতসেঁতে হয়ে আছে রাস্তা। পথচারীদের হাঁটতে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। নিউইয়র্কে গত ১৫০ বছরে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ তুষারপাত হয়েছিল ক’দিন আগে। জ্যাকসন হাইটসে যে কোনো রাস্তা দিয়ে হাঁটলে বিপুল সংখ্যক বাংলাদেশিকে চোখে পড়ে। মানুষের আনাগোনা একটু কম। ফুটপাতে কয়েকটি দোকান খোলা আছে। কোনো ক্রেতা নেই।

সাবওয়ে থেকে ৭৩ স্ট্রিটের দিকে মোড় নিতেই ষাটোর্ধ্ব এক বৃদ্ধের সঙ্গে দেখা। মুখভর্তি দাড়ি। হাতে অনেক ফ্লায়ার। রাস্তা দিয়ে যে-ই যাচ্ছে একটি করে হাতে গুঁজে দেওয়ার চেষ্টা করছেন। কাছে গিয়ে দাঁড়ালাম। দেখলাম একটি ফার্মাসির ফ্লায়ার। কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে জিজ্ঞেস করলাম, কেমন আছেন? একটা কৃত্রিম হাসি দিয়ে বললেন, ‘ভালো আছি।’ এর পর নাম বললেন_ মঞ্জুরুল ইসলাম। জানালেন, মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় বাড়ি। তিন ছেলে এক মেয়ে। বড় ছেলে প্রতিবন্ধী। বাকি দু’জন ঢাকায় ছোটখাটো চাকরি করে। জায়গাজমি তেমন নেই। দেশে ৪০ বছরের মতো গতরে খেটেছেন। এখানে মেয়ে আর জামাইয়ের সঙ্গে থাকেন। বছরখানেক আগে আমেরিকায় এসেছেন।

এত ঠাণ্ডায় দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ফ্লায়ার বিতরণ করতে কষ্ট হয় না_ বললেন, ঠাণ্ডা বলে তো জীবন আর থেমে থাকবে না। কাজ না করলে তো টাকা পাব না। স্নো পড়ার কারণে তিন দিন কাজ করতে পারিনি। দৈনিক কত ডলার আয় করেন জানতে চাইলে বলেন, ‘২০ ডলার। ৪ ঘণ্টা কাজ করি।’ এটা দিয়ে হয়? ‘কিছু করার নেই। বললেই তো আর তারা আওয়ার বাড়িয়ে দেবে না। চাইলেই একটা কাজ খুঁজে পাওয়া কঠিন। বয়সের কারণে এখন তো আর ভারী কাজ করতে পারব না। বলেন, চাকরি থাকলে দিয়েন।’ ঠিক আছে বলে প্রস্থান করলাম।

৭৩ স্ট্রিটেই দেখা মিলল আরেক বাংলাদেশির। একটা দোকানের বাইরের অংশে শাটারে ঝুলিয়ে তিনি নারীদের জামাকাপড় বিক্রি করেন। প্রচণ্ড ঠাণ্ডায় তিনিও জবুথবু। সংগ্রামী জীবনের গল্প বলা শুরু করেন ফয়সাল। জানালেন, এক দশক আগে আমেরিকা এসেছেন। দেশে ভালোই ছিলেন। ঢাকায় ছোটখাটো ব্যবসা ছিল। ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় সব বিক্রি করে আমেরিকায় পাড়ি জমালেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো পরিবর্তন দেখতে পাননি। নিউইয়র্কে এসে টানা আট বছর অড জব করার পর দু’বছর ধরে এ ব্যবসা দিয়েছেন। শুরুতে মোটামুটি ভালোই চলছিল। কয়েক মাস ধরে বেশ মন্দা। মাস শেষে যা আয় হয় তা দিয়ে বাসা ভাড়ার টাকা জোগাড় করা কষ্ট। জানি না, এভাবে কতদিন টেনে নিয়ে যাব! মাঝে মধ্যে নিজের ওপর বেশ রাগ হয়। ভাবি, আবার অড জবে ফিরব।

তিনি আরও জানান, বাংলাদেশি অনেক রেস্টুরেন্ট গ্রোসারি থেকে কাজের অফার পাওয়া যায়। কিন্তু অধিকাংশ বাংলাদেশি কর্মচারীদের ঠকায়। বলতে গেলে কেউই নিউইয়র্কে যে মিনিমাম ওয়েজ, সেটা দেয় না। রেস্টুরেন্টের কর্মচারীদের বাস্তব অবস্থা বুঝতে ৭৩ স্ট্রিটের ৩৭ এভিনিউতে একটি বাংলাদেশি মালিকানাধীন রেস্টুরেন্টে গেলাম। খাবারের অর্ডার দিলাম। অর্ডার নিলেন আশরাফ (ছদ্মনাম)। বেশ কিছুক্ষণ কথা বলার পর জানালেন, তিনি এক সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন। ছাত্র রাজনীতিও করতেন। ১/১১-এর পর তিনি দেশ ছাড়েন অনেকটা পরিবারের চাপে। ভাগ্যান্বেষণে প্রথমে যান লন্ডনে। দু’বছর থাকার পর চলে আসেন যুক্তরাষ্ট্রে। এসেই কোনো উপায় না দেখে রেস্টুরেন্টের কাজে যোগ দেন। ঘণ্টায় ৫ ডলার দেয়। সঙ্গে কিছু টিপ্স পান। জানালেন, লিগ্যাল স্ট্যাটাস বজায় রাখতে একটা কলেজে কোনো রকম অ্যাডমিশন নেন। সপ্তাহে ছয় দিন ১০ ঘণ্টা কাজ করেন। দুপুর থেকে মাঝরাত পর্যন্ত। রয়েছে কাস্টমার ও মালিকের দুর্ব্যবহার। কাজে যতক্ষণ থাকি চুপচাপ থাকি।

কথা বলতে বলতে এক সময় তার চোখ অশ্রুসিক্ত। তাকিয়ে দেখি চোখ দুটি অনেকটা খোলসের ভেতর চলে গেছে। অশ্রু গড়িয়ে পড়তে চাইলেও তা সংবরণ করার চেষ্টা করছেন। একটা হাত বের করে দেখালেন, একদিন সালাদ কাটতে গিয়ে আঙুলই কেটে ফেলেছিলেন। অনেক সেলাই দিতে হয়েছিল। ১৫ দিনের মতো কাজ করতে পারেননি। এভাবে কতদিন জানতে চাইলে আশরাফ বলেন, কখনও ভাবিনি_ জীবনে এমন পরিস্থিতির শিকার হতে হবে। এখান থেকে সরতেও পারছি না। বাবার অনেক টাকা খরচ করে এখানে এসেছি। খালি হাতে ফিরে গেলে কী জবাব দেব?

শুধু আশরাফ, ফয়সাল আর মঞ্জুরুলই নন; নিউইয়র্কে ভাগ্য-বিড়ম্বনার শিকার এ রকম হাজারো মানুষ। উচ্চ জীবনের স্বপ্ন নিয়ে হাজারো বাংলাদেশি আমেরিকায় এলেও সে স্বপ্ন রঙিন হয়ে ধরা দেয় না অধিকাংশের জীবনে।
যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী; গ্র্যাজুয়েট অ্যাসিস্ট্যান্ট ইউনিভার্সিটি অব সাউথ ডেকোটা

এই পোস্ট শেয়ার করুন:

এই বিভাগের আরো খবর

নামাযের সময়

সেহরির শেষ সময় - ভোর ৩:৫৩
ইফতার শুরু - সন্ধ্যা ৬:৪৬
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৫৮
  • ১২:০৪
  • ৪:৩৯
  • ৬:৪৬
  • ৮:০৯
  • ৫:১৯

বিগত মাসের খবরগুলি

শুক্র শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১