1. [email protected] : amzad khan : amzad khan
  2. [email protected] : NilKontho : Anis Khan
  3. [email protected] : Nil Kontho : Nil Kontho
  4. [email protected] : Nilkontho : rahul raj
  5. [email protected] : NilKontho-news :
  6. [email protected] : M D samad : M D samad
  7. [email protected] : NilKontho : shamim islam
  8. [email protected] : Nil Kontho : Nil Kontho
  9. [email protected] : user 2024 : user 2024
  10. [email protected] : Hossin vi : Hossin vi
মুক্তিযুদ্ধের দিনগুলোয় আমেরিকা ! | Nilkontho
২২শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | সোমবার | ৭ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
হোম জাতীয় রাজনীতি অর্থনীতি জেলার খবর আন্তর্জাতিক আইন ও অপরাধ খেলাধুলা বিনোদন স্বাস্থ্য তথ্য ও প্রযুক্তি লাইফষ্টাইল জানা অজানা শিক্ষা ইসলাম
শিরোনাম :
চুয়াডাঙ্গায় কোটাবিরোধী আন্দোলনকারীদের সংঘর্ষ ছোটবেলায় মায়ের বয়সী শর্মিলাকে চড় মেরেছিলেন প্রসেনজিৎ, কেন? সকালের নাস্তায় রাখতে পারেন যেসব খাবার হানিফ ফ্লাইওভারে পুলিশ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষে তরুণ নিহত ঢাকাসহ সারাদেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন ক্যান্সার আক্রান্তদের ৭৩.৫% পুরুষ ধূমপান, ৬১.৫% নারী তামাকে আসক্ত প্যারিসে ‘রৌদ্র ছায়ায় কবি কণ্ঠে কাব্য কথা’ শীর্ষক আড্ডা যে জিকিরে আল্লাহ’র রহমতের দুয়ার খুলে যায় কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সতর্কতা, দূতাবাস বন্ধ সারাদেশে আজ ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি আসামি ধরতে যেয়ে গ্রামবাসী হামলা ৫ পুলিশ সদস্য আহত, নারীসহ আটক ৭ বৃহস্পতিবার সারাদেশে  শাটডাউন’ কর্মসূচি ঘোষণা যুগান্তরের সাংবাদিক ও তার পরিবারের প্রাণনাশের হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন জাবিতে পুলিশের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষ শিক্ষার্থীদের ফরিদপুরে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৩, আহত ৩০ শেরপুরে শিক্ষার্থী, ছাত্রলীগ ও পুলিশের ত্রিমুখী সংঘর্ষ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিন্দা জানালেন প্রধানমন্ত্রী খাওয়ার পর যে ৫ ভুল স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর ভিসি চত্বরে পুলিশের সাউন্ড গ্রেনেডে পাঁচ সাংবাদিক আহত ঢাবিতে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ দুই শিক্ষার্থী, আহত ১৫

মুক্তিযুদ্ধের দিনগুলোয় আমেরিকা !

  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ২১ জানুয়ারি, ২০১৭
  • ৪৯ মোট দেখা:

নিউজ ডেস্ক:

এএ বইয়ের সবচেয়ে বড় গুণ ফ্ল্যাশব্যাক ও ফ্ল্যাশ ফরওয়ার্ডের আশ্রয়ে লেখক হায়দার আলী খান তাঁর বক্তব্য-সম্পৃক্ত ঘটনাবলিকে প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত টেনে নিয়ে গেছেন। বলেছেনও তিনি তাঁর সে কথা বইয়ের ভূমিকায়, ‘আমার এ ক্ষুদ্র আখ্যান কোথাও সরলরৈখিকভাবে ইতিহাস-অনুসারী, আবার কোথাওবা বক্র। এই বক্রতায় ফ্ল্যাশব্যাক, ফ্ল্যাশ ফরওয়ার্ডসহ সময়ের বহুস্তরবিশিষ্টতাও রয়েছে। বহুস্তরবিশিষ্ট সময় নিয়ে এখন ঐতিহাসিকদের সর্বোচ্চ স্তরে বিশেষ বিতর্ক ও আলোচনা চলছে। তার কিছুটা আভাসও পাঠকদের দেওয়ার চেষ্টা করেছি পাণ্ডিত্যের মরুভূমির বালির কচকচানি যতটা সম্ভব বাদ দিয়ে।’

এর পরপরই অত্যন্ত বিনীতভাবে, আনুষ্ঠানিকভাবে সে কথা স্বীকার করে, আমাদের, পাঠকদের লেখক নিয়ে যাচ্ছেন এ বইয়ের ঘটনার পর্ব থেকে পর্বান্তরে।

আমরা বইয়ের শুরুতেই জানছি লেখক অত্যন্ত মেধাবী শিক্ষার্থী ছিলেন। ১৯৭১ সালে তিনি ছিলেন ঢাকা কলেজের উচ্চমাধ্যমিক শ্রেণির ছাত্র। ওই বছরেরই জানুয়ারি মাসে তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যান তরুণদের এক সমাবেশে যোগ দেওয়ার জন্য। তিন মাস মেয়াদি এই সফরের সময়ই শুরু হয়ে যায় বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ। তাঁর আর দেশে ফেরা হয় না। এই অবস্থায় তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের যে বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছিলেন, সেই বাড়ির টেলিফোন মারফত খবর পাচ্ছেন ১৯৭১-এর ২৫ মার্চে ঢাকাসহ সারা দেশে পাকিস্তানি বাহিনীর নির্বিচারে বাঙালি হত্যাযজ্ঞের সংবাদ। লেখক তাঁর প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে বলছেন, ‘মি. হাফম্যান…তো টেলিফোনে আমাকে জানিয়ে তাঁর কর্তব্য শেষ করলেন। কিন্তু তারপর আমার অবস্থাটা যা দাঁড়াল, তা এককথায় অবর্ণনীয়।’ এই প্রতিক্রিয়াই এ বই রচনার আদি ও অকৃত্রিম উৎস। এরপর খবর পাচ্ছেন, বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়ে যাওয়ার একেবারে শুরুর দিনই নিউইয়র্কের পাকিস্তানি কনস্যুলেটের কয়েকজন বাঙালি কূটনীতিকের বাংলাদেশের পক্ষে তাঁদের সমর্থন ঘোষণা করার কথা।

.মুক্তিযুদ্ধের দিনগুলি: প্রবাসে আলোর গান
হায়দার আলী খান
প্রচ্ছদ: মাসুক হেলাল l প্রকাশক: প্রথমা প্রকাশন, ঢাকা l প্রকাশকাল: অক্টোবর ২০১৬ ১২৮ পৃষ্ঠা l দাম: ২৫০ টাকা।

এই প্রথম বই, যাতে একজন রাজনীতি-সচেতন বাঙালি তরুণের বয়ানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের অনুকূলে কিংবা তার প্রতিকূলে যা কিছু ঘটেছিল, তার প্রায় অনুপুঙ্খ বিবরণ তুলে ধরা হয়েছে। তুলে ধরা হয়েছে একেবারে তৃণমূল পর্যায় থেকে, একান্ত ঘরোয়াভঙ্গিতে। স্মৃতিকাতর লেখক হায়দার আলী খান অবশ্য যেমন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চলমান ঘটনার বর্ণনা তুলে ধরছেন, তেমনি থেকে থেকেই ফিরে যাচ্ছেন অনতি অতীতে। পা রাখছেন স্মৃতির ওপর ভর করে দেশের মাটিতে। জানাচ্ছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ সন্তান শেখ কামালের সঙ্গে তাঁর পরিচয়ের নিবিড়তার কথা, স্মরণ করছেন নিজের পরিবার ও পারিবারিক ঐতিহ্যের কথা, তাঁর রাজনীতিমনস্ক ও সক্রিয়তাবাদী হওয়ার কথা। ১৯৬৯-এর গণ-অভ্যুত্থানের বৃত্তান্ত প্রায় সবিস্তারে তুলে ধরা হয়েছে। তুলে ধরা হয়েছে সেই দিনটির কথা, যেদিন শেখ মুজিবুর রহমানকে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধিতে ভূষিত করা হয়েছিল। এসবই ফ্ল্যাশব্যাকের কথা—আমেরিকার মাটিতে বসে। কিন্তু এ বইয়ের মূল বিষয় উঠে এসেছে এখানে উদ্ধৃত এই কয়টি অধ্যায়ের মাধ্যমে। অধ্যায়গুলো হলো: ‘নিউইয়র্কের রাজপথে বাংলাদেশের মুখ’, ‘একবাল আহমদ ও আমাদের আন্দোলন’, ‘ইতিহাসের ভাঙাগড়ায় পূর্ব পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশ’, ‘বাংলাদেশের আন্দোলন: এক আমেরিকান কিশোরের প্রতিক্রিয়া’, ‘মার্চের নিউইয়র্ক ও আমাদের মুক্তিসংগ্রাম’, ‘মার্চের শেষ দিনটি’, ‘৩১ মার্চের একটি ছবি’, ‘মিসক্রিয়েট বনাম মুক্তিযোদ্ধা’, ‘বরফে পায়ের ছাপ: বাঙালি মধ্যবিত্তের স্বরূপ’, ‘রবার্ট হাফম্যান: আমেরিকা, পাকিস্তান ও আমাদের মুক্তিযুদ্ধ’, ‘লেনারড বার্নস্টিন ও বাংলাদেশ প্রসঙ্গ’, ‘অ্যালেন গিনসবার্গের সঙ্গে কয়েকটি সন্ধ্যা’, ‘মুক্তিযুদ্ধ প্রসঙ্গে এক মার্কিন স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের প্রতিক্রিয়া’, ‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ ১: রবিশঙ্কর, জর্জ হ্যারিসন ও অন্যান্য শিল্পী’ এবং ‘পল রোবসন, পিট সিগার ও জোন বায়েজ’। উপরিউক্ত শিরোনামের অধ্যায়গুলো পড়লেই বোঝা যাবে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আমাদের মুক্তিযুদ্ধের পূর্বাপর বিরোধী হলেও দেশটির সমাজের নানাস্তরে চলেছে তার অনুকূলে নানা উদ্যোগ, আয়োজন ও সমর্থনের পালা। হায়দার আলী খানকে ধন্যবাদ এমন সব তথ্য এ বইয়ে তুলে ধরার জন্য, যা এত দিন আমাদের কাছে অজানা ছিল। এ বইয়ের বাড়তি পাওনা হলো মনজুরুল হকের দীর্ঘ সুলিখিত ভূমিকা। এটি বইয়ের পাঠকে আকর্ষণীয় করে তুলেছে। বইটি মূলত স্মৃতিচারণামূলক, তবে তা ইতিহাসেরও অঙ্গীভূত অংশ হয়ে উঠেছে।

এই পোস্ট শেয়ার করুন:

এই বিভাগের আরো খবর

নামাযের সময়

সেহরির শেষ সময় - ভোর ৪:০১
ইফতার শুরু - সন্ধ্যা ৬:৫৭
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:০৬
  • ১২:১৪
  • ৪:৪৯
  • ৬:৫৭
  • ৮:২০
  • ৫:২৮

বিগত মাসের খবরগুলি

শুক্র শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১