1. [email protected] : amzad khan : amzad khan
  2. [email protected] : NilKontho : Anis Khan
  3. [email protected] : Nil Kontho : Nil Kontho
  4. [email protected] : Nilkontho : rahul raj
  5. [email protected] : NilKontho-news :
  6. [email protected] : M D samad : M D samad
  7. [email protected] : NilKontho : shamim islam
  8. [email protected] : Nil Kontho : Nil Kontho
  9. [email protected] : user 2024 : user 2024
  10. [email protected] : Hossin vi : Hossin vi
বাংলাদেশ ও চীনের কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার কেন দরকারি | Nilkontho
১৩ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | শনিবার | ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
হোম জাতীয় রাজনীতি অর্থনীতি জেলার খবর আন্তর্জাতিক আইন ও অপরাধ খেলাধুলা বিনোদন স্বাস্থ্য তথ্য ও প্রযুক্তি লাইফষ্টাইল জানা অজানা শিক্ষা ইসলাম
শিরোনাম :
বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শন করলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডাঃ সামন্ত লাল সেন সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরেছেন ৬৮ হাজার হাজি শেষ ধাপেও কলেজ পায়নি ৭০০ জিপিএ-৫ প্রাপ্তসহ ১২ হাজার শিক্ষার্থী ইকুয়েডরে প্রেসিডেন্ট প্রার্থীকে হত্যার দায়ে ৫ জনের কারাদণ্ড বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের সঙ্গে বৈঠকে ওবায়দুল কাদের রাস্তা ব্লক করলেই কঠোর হবে পুলিশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে গণ-অবস্থান চীন সফর নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন রোববার এবার ‘প্রক্সি’ চক্রের সন্ধান, জড়িত ঢাবির ৪ শিক্ষার্থী সাত দফা দাবিতে শাহবাগে পাল্টা কর্মসূচি দিলো মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ অন্তঃসত্ত্বা পুত্রবধূকে বাঁচাতে গিয়ে মারা গেলেন শ্বাশুড়িও ডাইরেক্ট অ্যাকশনে পর্দায় ফিরছেন চিত্রনায়িকা পপি মালয়েশিয়ায় আন্তর্জাতিক মেশিনারি মেলায় বাংলাদেশের অংশগ্রহণ চাকরি ছাড়লেন ৬ বিসিএস ক্যাডার কোটাবিরোধী আন্দোলনে হামলার প্রতিবাদে শাবিপ্রবিতে মশাল মিছিল কড়ই গাছ কেটে ফেলায় পিসিপির প্রতিবাদ সারা দেশে গ্যাস সরবরাহ স্বাভাবিক গাজায় যুদ্ধ বন্ধের সময় এসেছে : বাইডেন ঠাকুরগাঁওয়ের আম যাচ্ছে ইউরোপে শেষ আষাঢ়ের বৃষ্টি চাষির আর্শিবাদ

বাংলাদেশ ও চীনের কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার কেন দরকারি

  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৯ জুলাই, ২০২৪
  • ৯ মোট দেখা:

আন্তর্জাতিক ডেক্সঃ

বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে একটি শক্তিশালী ও পারস্পরিক উপকারী সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য উভয় পক্ষের সক্রিয় উদ্যোগ প্রয়োজন।বাংলাদেশের রাজনৈতিক অর্থনীতি এবং রাজনৈতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে চীনের দিকনির্দেশনা সাম্প্রতিক বছরগুলিতে ক্রমবর্ধমান প্রভাব এবং গভীর সম্পর্ক দ্বারা চিহ্নিত করা হয়। অর্থনৈতিক সম্পর্ক, চীন বাংলাদেশের জন্য একটি বড় বিনিয়োগকারী এবং উন্নয়ন সহযোগী হয়ে উঠেছে।  বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের (বিআরআই) অধীনে প্রকল্পগুলি, যেমন অবকাঠামো উন্নয়ন, জ্বালানি এবং পরিবহন, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে চীনের সম্পৃক্ততা উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করেছে।

এর মধ্যে রয়েছে পদ্মা সেতু, বিদ্যুৎকেন্দ্র এবং শিল্পাঞ্চল নির্মাণ। বাণিজ্য, চীন বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বাণিজ্যিক অংশীদার।  চীন বাংলাদেশে যন্ত্রপাতি, ইলেকট্রনিক্স, টেক্সটাইল এবং অন্যান্য পণ্য রপ্তানি করে, টেক্সটাইল, গার্মেন্টস এবং কাঁচামাল আমদানি করে বাণিজ্যের পরিমাণ ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। চীন ও বাংলাদেশের মধ্যে রাজনৈতিক সম্পর্ক জোরদার হয়েছে।  উভয় দেশের কর্মকর্তাদের মধ্যে ঘন ঘন উচ্চ পর্যায়ের সফর এবং আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ইস্যুতে কূটনৈতিক সহযোগিতা বৃদ্ধির মাধ্যমে এর প্রমাণ মেলে। সামরিক সহযোগিতা, অস্ত্র বিক্রি, যৌথ সামরিক মহড়া এবং প্রশিক্ষণ কর্মসূচি সহ চীন ও বাংলাদেশের মধ্যে সামরিক সহযোগিতা উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। সাংস্কৃতিক এবং জনগণের মধ্যে-মানুষের আদান-প্রদান, চীন সক্রিয়ভাবে কনফুসিয়াস ইনস্টিটিউট এবং বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের চীনে পড়াশোনা করার জন্য বৃত্তির মতো উদ্যোগের মাধ্যমে সাংস্কৃতিক বিনিময় এবং জনগণের মধ্যে বন্ধনকে উন্নীত করছে।

বাংলাদেশের অর্থনীতি এবং রাজনৈতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে চীনের দিকনির্দেশনা গভীর অর্থনৈতিক একীকরণ, কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রে কৌশলগত সহযোগিতা সম্প্রসারণের দিকে নির্দেশ করে। এই অঞ্চলে নিজ নিজ ভূ-রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক স্বার্থের পরিপ্রেক্ষিতে এই সম্পর্ক উভয় দেশের জন্য তাৎপর্যপূর্ণ।
চীন ও ভারত উভয়ের সাথেই সম্পর্ক পরিচালনার জন্য বাংলাদেশকে একটি ভারসাম্যপূর্ণ পন্থা অবলম্বন করতে হবে যা উভয় প্রধান শক্তির সাথে ইতিবাচক সম্পর্ক বজায় রেখে তার জাতীয় স্বার্থ রক্ষা করে। এখানে বাংলাদেশ বিবেচনা করতে পারে এমন কিছু সতর্কতা রয়েছে, কৌশলগত স্বায়ত্তশাসন বজায়,চীন ও ভারত সহ বহিরাগত শক্তির সাথে সমস্ত লেনদেনে বাংলাদেশের কৌশলগত স্বায়ত্তশাসন এবং সার্বভৌমত্ব বজায় রাখাকে অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত। অর্থনৈতিক বা নিরাপত্তার কারণে কোনো একক দেশের ওপর অতিরিক্ত নির্ভরশীল হওয়া এড়ানো উচিত। বৈদেশিক সম্পর্কের বৈচিত্র্য বাংলাদেশ শুধু চীন ও ভারত নয়, অন্যান্য আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক শক্তির সাথে যুক্ত হয়ে বৈদেশিক সম্পর্কের বৈচিত্র্য আনতে পারে। এই বৈচিত্র্য যেকোনো একটি দেশের উপর নির্ভরতা কমাতে পারে এবং আলোচনায় লিভারেজ প্রদান করতে পারে। স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা, লুকানো এজেন্ডা বা ঋণ-ফাঁদ কূটনীতির কোনো উপলব্ধি রোধ করতে চীনের সাথে সমস্ত দ্বিপাক্ষিক চুক্তি এবং প্রকল্পে স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা নিশ্চিত করে সতর্কতার সাথে এগোতে হবে। পাবলিক স্ক্রুটিনি এবং সংসদীয় তদারকি এক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে। অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব উন্নতকরুন, বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং যৌথ উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে ভারতের সাথে অর্থনৈতিক অংশীদারিত্বকে শক্তিশালী করতে হবে।  এটি পারস্পরিক অর্থনৈতিক সুবিধা তৈরি করতে এবং দুই দেশের মধ্যে আস্থা তৈরি করতে পারে। সাংস্কৃতিক এবং জনগণের মধ্যে-মানুষের আদান-প্রদান, শক্তিশালী সামাজিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে এবং পারস্পরিক বোঝাপড়াকে উন্নীত করতে ভারতের সাথে সাংস্কৃতিক এবং জনগণের মধ্যে আদান-প্রদান বৃদ্ধি,শিক্ষাগত আদান-প্রদান, পর্যটন এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এই প্রচেষ্টায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। আঞ্চলিক সহযোগিতা উদ্যোগ, দক্ষিণ এশিয়ায় অর্থনৈতিক সংহতি ও স্থিতিশীলতাকে উন্নীত করার জন্য আঞ্চলিক সহযোগিতার উদ্যোগে নিযুক্ত হয়ে চীন ও ভারত উভয়ই অন্তর্ভুক্ত, যেমন বে অফ বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভ ফর মাল্টি-সেক্টরাল টেকনিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক কোঅপারেশন (বিমসটেক)। ভারসাম্যপূর্ণ নিরাপত্তা অংশীদারিত্ব, নিরাপত্তা অংশীদারিত্বের জন্য একটি ভারসাম্যপূর্ণ দৃষ্টিভঙ্গি বজায় রাখা, আঞ্চলিক নিরাপত্তা ইস্যুতে চীন এবং ভারত উভয়ের সাথে সহযোগিতা নিশ্চিত করা, পাশাপাশি সামরিক জোটে অ-সংখ্যাবদ্ধতা অনুসরণ করা। বিরোধগুলি কূটনৈতিকভাবে নেভিগেট, চীন বা ভারতের সাথে যে কোনও বিরোধ বা মতানৈক্য কূটনৈতিকভাবে এবং আলোচনার মাধ্যমে, শান্তিপূর্ণ সমাধান এবং সার্বভৌমত্বের প্রতি পারস্পরিক সম্মানের উপর জোর দিয়ে পরিচালনা করা।

নিঃসন্দেহে, বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে একটি শক্তিশালী ও পারস্পরিক উপকারী সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য উভয় পক্ষের সক্রিয় উদ্যোগ প্রয়োজন।  উন্নত অর্থনৈতিক সহযোগিতা, কৃষি, প্রযুক্তি হস্তান্তর এবং উত্পাদনের মতো খাতগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করতে অবকাঠামো প্রকল্পের বাইরে অর্থনৈতিক সহযোগিতাকে আরও গভীর করতে পারে, এই বহুমুখীকরণ উভয় দেশের জন্য আরও টেকসই অর্থনৈতিক সুবিধা তৈরি করতে পারে। বাণিজ্য সুবিধা অগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্য চুক্তি বা মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির মতো উদ্যোগের মাধ্যমে বাণিজ্য পদ্ধতিকে সহজ করা, শুল্ক হ্রাস করা এবং দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যকে উন্নীত করা, উভয় দেশের পণ্যের জন্য বাজারে অ্যাক্সেস বাড়ানো।  বিনিয়োগকারীদের জন্য বিনিয়োগ সুরক্ষা, স্থিতিশীলতা এবং আস্থা নিশ্চিত করে উভয় দেশের বিনিয়োগ রক্ষা করার জন্য পরিষ্কার এবং স্বচ্ছ প্রক্রিয়া স্থাপন   এর মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বিনিয়োগ চুক্তি বা বিরোধ নিষ্পত্তির প্রক্রিয়া অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। সাংস্কৃতিক ও শিক্ষাগত আদান-প্রদান, পারস্পরিক বোঝাপড়া এবং বন্ধুত্ব বৃদ্ধির জন্য সাংস্কৃতিক ও শিক্ষাগত বিনিময় প্রসারিতকরুন, যৌথ গবেষণা প্রকল্প, ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য বৃত্তি এবং সাংস্কৃতিক প্রদর্শনীর মতো উদ্যোগ জনগণের মধ্যে বন্ধনকে শক্তিশালী করতে পারে। পরিবেশগত সহযোগিতা, পরিবেশগত সুরক্ষা এবং টেকসই উন্নয়ন উদ্যোগগুলিতে সহযোগিতা যেমন পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি প্রকল্প এবং জলবায়ু পরিবর্তন প্রশমন প্রচেষ্টা, ভাগ করা চ্যালেঞ্জগুলি মোকাবেলা করতে এবং সবুজ বৃদ্ধিকে উন্নীত করতে, নিরাপত্তা এবং সন্ত্রাস দমন সহযোগিতা, আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করতে এবং কার্যকরভাবে আন্তঃজাতিক হুমকি মোকাবেলা করতে সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধ ব্যবস্থা এবং গোয়েন্দা তথ্য ভাগাভাগি সহ নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে সহযোগিতা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। স্বাস্থ্যসেবা সহযোগিতা, স্বাস্থ্যসেবা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে এবং জনস্বাস্থ্যের ফলাফল উন্নত করতে জনস্বাস্থ্য অবকাঠামো উন্নয়ন, রোগ প্রতিরোধ এবং চিকিৎসা গবেষণা সহ স্বাস্থ্যসেবা উদ্যোগে সহযোগিতা,বহুপাক্ষিক সম্পৃক্ততা জাতিসংঘের মতো বহুপাক্ষিক ফোরামে ঘনিষ্ঠভাবে সমন্বয়করুন, যেখানে উভয় দেশ শান্তিরক্ষা কার্যক্রম, আন্তর্জাতিক উন্নয়ন এবং মানবাধিকারের মতো বৈশ্বিক বিষয়গুলিতে একসঙ্গে কাজ করতে পারে। এই বিভিন্ন মাত্রায়  সম্পর্ক জোরদার করার জন্য সক্রিয় পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশ ও চীন একটি স্থিতিস্থাপক এবং স্থায়ী অংশীদারিত্ব গড়ে তুলতে পারে যা উভয় দেশের জন্য উপকৃত হয় এবং আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক স্থিতিশীলতায় ইতিবাচক অবদান রাখে।

এই পোস্ট শেয়ার করুন:

এই বিভাগের আরো খবর

নামাযের সময়

সেহরির শেষ সময় - ভোর ৩:৫৫
ইফতার শুরু - সন্ধ্যা ৬:৫৯
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:০০
  • ১২:১৩
  • ৪:৪৯
  • ৬:৫৯
  • ৮:২৪
  • ৫:২৪

বিগত মাসের খবরগুলি

শুক্র শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১